শারীরিক-দুর্বলতা-কাটানোর-ঘরোয়া-উপায়

শারীরিক দুর্বলতা কাটানোর ঘরোয়া উপায়

 

শরীর দূর্বলতার কারণ:

১। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান কম হলে।
২। চিন্তা ও ভয় থেকেও শরীর দুর্বল হয়।
৩। সঠিকভাবে খাদ্য গ্রহণ না করলে।
৪। ডায়রিয়া ও বমি হলে।
৫। ‍প্রস্রাব পায়খানা চেপে রাখলেও শরীর দুর্বলহতে পারে।

 

শারীরিক দুর্বলতা কাটানোর ঘরোয়া উপায়:

১। টমেটোর স্যুপ পান করা। এতে ক্ষুধা বেড়ে যায়। খাদ্য গ্রহণের ইচ্ছা জাগে। তাছাড়াও টমেটোর স্যুপ পান করলে শরীরে রক্তের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। এভাবে দুর্বলতা কেটে যায়।
২। কফি পান করলে মানসিক চিন্তা দূর হয় এবং শরীরের সতেজতা চলে আসে। খাবার গ্রহণের পর কফি পান করলে পেট হালকা অনুভূত হয়। এটি পানে পেটের ছোট-খাট সমস্যা থাকলে তা দূর হয়।
৩। গাভী অথবা ছাগলের দুধ পান করলে শরীরে শক্তি হয়। পুরুষত্বহীনতা দূর করতে দুধ পান করুন। স্ত্রী সহবাসের পর দুধে ৩-৪ টা বাদাম পিষে মিশিয়ে পান করলে দুর্বলতা কেটে যাবে।
৪। মাংসপেশীর দুর্বলতা কাটাতে সামান্য লবণে ঠাণ্ডা পানি মিশিয়ে শরীরে মালিশ করুন। পেশী দুর্বলতা নিমিষেই শেষ হবে!
৫। যৌন দুর্বলতা কাটাতে ফানসা ফল ফল খুবই উপকারী। পেস্তাদানা পিষে মধুর সাথে মিশিয়ে প্রতিদিন সেবন করলে দুর্বলতা দূর হয়।

৬। অসুখ ও রোগভোগের কারণে শরীর দুর্বল হলে নিম গাছের ছাল সিদ্ধ করে খেতে পারেন।
৭। খেজুর শক্তিবর্ধক হিসেবে কাজ করে থাকে।খেজুরের সাথে মাখন মিশিয়ে খেলে প্রচুর শক্তি পাবেন আপনি। এতে  আপনার শুক্রাণু বৃদ্ধি পাবে।

৮। ভালো মানের খাবার খেলে শক্তি বাড়ে। এবং নতুন রক্তকোষ তৈরির জন্যও প্রত্যহ ৮-১০ টি করে খেজুর খেতে পারেন।

৯। শরীরের ভিটামিন ও মিনারেল বা খনিজের ঘাটতি রোধকল্পে বেশি বেশি  বাঙ্গীর সালাত খান।
১০। গাজরের হালুয়া শক্তিবর্ধক হিসেবে কাজ করে থাকে । দুর্বল ও অসুস্থ ব্যক্তিদের প্রতিদিন গাজর খাওয়া উচিৎ। দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে গাজরের উপকারীতা সম্পর্কে সবারই জানা আছে।

শারীরিক-দুর্বলতা-কাটানোর-ঘরোয়া-উপায়
শারীরিক দুর্বলতা কাটানোর উপায়

                          শারীরিক দুর্বলতা কাটানোর সহজ সমাধান

১১। প্রতিদিন নিয়ম করে সবুজ মেথী সেবন করলে শরীরের  দুর্বলতা দূর হয়।  স্ত্রীলোকের গর্ভপাত ও রক্তক্ষরণ ইত্যাদি হলে শরীর দুর্বল হয়ে যায়। এসময় মেথী সেবন করলে দুর্বলতা দূর হয়।
১২। প্রত্যহ সকালে দুধের সাথে একটি কলা খেলে শক্তি বাড়ে।
১৩। আনার রক্ত পরিষ্কারক।
১৪। নারিকেল খেলে শরীর মোটা হয়। এটি শক্তিবর্ধকও বটে। চুল ঘন ও মজবুত করতে নারিকেল খাবেন বেশি বেশি। সবার দিনে কমপক্ষে ৩০-৫০ গ্রাম নারিকেল খাওয়া উচিৎ।
১৫। প্রতিদিন ঘি খেলে ওজন বাড়ে। ওজন বাড়াতে ঘি ও চিনি একসাথে মিশিয়ে খাবেন।

১৬। আখ খেলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। পেটের তাপ দূর হয়। শরীরে শক্তি আসে।
১৭। জয়ফল ও জয়ত্রী উভয় ১০ গ্রাম একত্রে নিয়ে, এবং তার সাথে ৫০ গ্রাম অশ্বগন্ধা মিশিয়ে প্রতিদিন দু’বার এক চা-চামচ দুধের সাথে মিশিয়ে সেবন করলে রক্ত বৃদ্ধি পায়।
১৮। কাজু বাদাম ও দুধের লেপ পায়ের দুর্বলতা কাটিয়ে তোলে। এই লেপ দিনে ২-৩ বার লাগাতে হয়।
১৯। কিশমিশ শক্তিবর্ধক। দিনে দু’বার কিশমিশ খাবেন।
২০। পুদিনা পাতায় যে ভিটামিন থাকে তা  শরীর পরিপূর্ণ সুস্থ ও সবল রাখে। তাই নিয়মিত পুুুুদিনা পাতা খেতে পারেন।
২১। দুধ, চিনি এবং লজ্জ্বাবতী এই তিনটি একত্রে মিশিয়ে সিদ্ধ করে পান করলে দুর্বলতা কেটে যায়।

 

 

আরও এমন স্বাস্থ্যকর তথ্য জানতে ভিজিট করুন এখানে . . .

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *